কীভাবে বুঝবেন আপনার কাছের মানুষ শুধু শরীরটাই চায়?

happy life

ক্রমশ দিন বদলাচ্ছে! সঙ্গে বদলে যাচ্ছে মানুষের মন-মানসিকতা। একজন মানুষ কি চায় তা ক্রমশ কঠিন হয়ে পড়ে। অল্পতেই বিশ্বাস করলেই ঠকতে হয়। প্রেম-ভালোবাসার ক্ষেত্রে ক্রমশ বাড়ছে এই সমস্ত সমস্যা। শারীরিক সম্পর্ক করে জীবনের সবথেকে কাছের মানুষকে ফেলে রেখে যাচ্ছেন। তবে এহেন বিপদে পড়ার আগে সতর্ক হন। ভাবছেন তো কীভাবে এই বিষয়ে সতর্ক হবেন? চিন্তা নেই রয়েছে সহজ উপায়ে। তাহলে এক ক্লিকে জেনে নিন কীভাবে বুঝবেন আপনার কাছের মানুষটি আপনার সঙ্গে শুধুমাত্র শারীরিক সম্পর্ক তৈরি করতে চাইছে না সত্যিই ভালোবাসে?

একসঙ্গে ঘুরতে যেতে অনিহা:

বেশ কয়েকদিন ধরেই দেখা সাক্ষাত হচ্ছে। তবে শুধু চার দেওয়ালের মধ্যে। কোথাও ঘুরতে যেতে, বা সুন্দর কোথাও সময় কাটাতে সঙ্গীর অনিহা। এরকম একসঙ্গে কাটানো সময়গুলো চার দেয়ালের মধ্যেই সীমাবদ্ধ হলে ধরে নিতে হবে সঙ্গী মোটেই সুবিধার নয়।

বন্ধুমহলে পরিচিতি নেই:

ভালোবাসার মানুষের সঙ্গে শারীরিকভাবে মিলিত হচ্ছেন অথচ তার বন্ধুমহলের সঙ্গে আপনার কোনও পরিচয় নেই। তিন মাসের সম্পর্কেও যদি এই পরিস্থিতি চলে তবে সতর্ক হওয়া দরকার। একজন পুরুষ তার প্রেয়সিকে নিয়ে ভবিষ্যত পরিকল্পনা থাকলে কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই সে তার বন্ধুমহলে পরিচয় করিয়ে দেবে। আর প্রেমিককে বান্ধবীদের সামনে তুলে ধরা মহিলাদের প্রিয় কাজগুলোর মধ্যে অন্যতম। তবে এর ব্যতিক্রম হলেই চিন্তার বিষয়। পরিস্থিতি বুঝতে নিজের বন্ধুদের নিয়ে আড্ডার পরিকল্পনা করতে পারেন। হতে পারে রেস্তোরাঁয় খেতে যাওয়া কিংবা সিনেমা দেখা। আড্ডার প্রস্তাব দিয়ে আপনার প্রেমিক বা প্রেমিকার মনোভাব লক্ষ করুন। সে যদি আগ্রহী না হয় তবে সম্পর্ক ত্যাগ করাই বুদ্ধিমানের কাজ হবে।

অতি দ্রুত, অনেক দুর:

“আরও আগে কেনও দেখা হল না?” “আমাকে ছেড়ে যাবে না তো?”— পরিচিত এই বাক্যগুলো শুনলে মনে প্রজাপতি উড়ে অনেকেরই। সঙ্গে যদি থাকে পূর্ব পরিকল্পিত উপহার তবে তো সোনায় সোহাগা। তবে একটু ভাবুন, বিষয়গুলো কি খুব দ্রুতই হচ্ছে? সম্পর্কের তিন সপ্তাহের মধ্যেই এই কথাগুলো শোনা বিপদের লক্ষণ। সম্পর্কের কয়েকদিনের মধ্যেই আকাশের চাঁদ এনে দেওয়ার অঙ্গীকার আসলে আপনার রক্ষণশীল মনোভাবকে দুর্বল করার কৌশল।

প্রেম ভালবাসা আমাকে দিয়ে হয় না:

নারী-পুরুষ উভয়ের মুখেই এই কথা শোনা যায়। পুরুষের একথা বলার অর্থ হল, সে আপনার সঙ্গে সম্পর্কে জড়াতে ইচ্ছুক নয়। সে শুধু শরীরটাই চায়, এর বেশি কিছু নয়। অপরদিকে মহিলাও ‘ধোয়া তুলসি পাতা’ নয়। “আমি আরও ধীরে অগ্রসর হতে চাই, আমার প্রাক্তন প্রেমিক আমার মন পুরোপুরি ভেঙে দিয়ে গেছে”- এই লাইনগুলো কি চেনা লাগছে। এরকম কোনও বক্তব্য শোনার পর সেই মহিলাকে প্রশ্ন করা উচিত, “মন যদি এতটাই ভেঙে গিয়ে থাকে তবে বর্তমান ঘনিষ্ঠতাকে সে কী মনে করছে?” কোনও রকম প্রতিশ্রুতি ছাড়াই বাড়তি সহানুভূতি আর শারীরিক সম্পর্ক পেতে নারীরা বেশিরভাগ ক্ষেত্রে এই কথাগুলো ব্যবহার করেন।

সঙ্গম ফুরালেই বিদায় নেওয়ার তাড়া:

বিছানায় ঘনিষ্ঠ সময়টুকু পার হলেই চলে যাওয়া সুযোগ খোঁজা শরীর কেন্দ্রিক সম্পর্কের একটি বড় ইঙ্গিত। এমনকি ছুটির দিনগুলোতেও কোনো না কোনো বাহানায় প্রেমিক বা প্রেমিকা চলে যেতে চাইলে সম্পর্ক নিয়ে আরেকবার ভেবে দেখুন।

About Heil Cat 10 Articles
আমি আফসানা স্পেল। বাংলাদেশে এত পত্রিকার ভিড়ে ডোমেইন হোস্টিং নিয়ে নিজের মত এই পত্রিকাটি চালাই। Heilcat.com এ আপনাকে স্বাগতম।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*